তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরু করেছেন পুতিন, রেহাই পাবে না ইইউ: সাবেক প্রধানমন্ত্রী

ইউক্রেনের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ভোলোদিমির গ্রোয়িসম্যান বলেছেন, ইউক্রেন আগ্রাসনে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন যদি সফল হন তাহলে তিনি পশ্চিমমুখী ইউরোপিয়ান রাজধানীগুলোর দিকে অগ্রসর হতে পারেন। অর্থাৎ ইউরোপিয়ান দেশগুলোতে আগ্রাসন চালাতে পারেন। শুধু তাই নয়, ইউক্রেনের সাবেক এই প্রধানমন্ত্রীর মতে- ইতিমধ্যেই পুতিন তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরু করে দিয়েছেন। সম্প্রতি দ্য টেলিগ্রাফকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে এমন মন্তব্য করেন তিনি।

গ্রোয়িসম্যান বলেন, ইউক্রেনের বীর যোদ্ধা এবং সেনাদের মনোবল দেখে তিনি স্তম্ভিত। কিন্তু দুর্ভাগ্য হলো, এই ধারা পাল্টে যেতে পারে যদি ইউরোপিয়ান রাজধানীগুলোর পক্ষে কোনো সমাধান না করা হয়। তিনি বলেন, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের দৃশ্য যত পারা যায় তা এড়ানো পছন্দ করি। ওই যুদ্ধে ইউরোপের রাজধানীগুলোতে বোমা হামলা চালানো হয়েছিল। তিনি আরও বলেন, এখনও সম্ভাবনার জানালা খোলা আছে। এখনও সময় আছে ইউক্রেনে পুতিনকে থামানোর । রাশিয়ান বাহিনীর কাছে ইউক্রেনের পতন হলে আমি শতভাগ নিশ্চিত যে, পশ্চিমারা আকস্মিকভাবে দেখতে পাবে পুতিনের উদ্দেশ্য শুধু রাজধানী কিয়েভ দখল করা নয়।

দ্য টেলিগ্রাফকে ইউক্রেনের এই সাবেক প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, যদি ইউক্রেনের পতন হয় তার মানে হবে পুতিনের সেনারা ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন ও ন্যাটো সীমান্তে পৌঁছে যাবে। তারপর এক বছরের মধ্যে, অথবা তারও আগে, হতে পারে আরও পরে পুতিন বাল্টিক রাজ্যগুলো এবং পোল্যান্ডে হস্তক্ষেপ করবেন। তার মানে তাদের ভাগ্যে কি ঘটতে যাচ্ছে? তখন কিছু ইউরোপিয়ান নেতা বলতে পারেন, দেখুন যুদ্ধ যদিও বড় হচ্ছে, তবু আমাদেরকে অপেক্ষা করতে হবে যে- এটা বড় মাপের যুদ্ধ হয়ে ওঠেনি। তারা কেবল লিথুয়ানিয়া, এস্তোনিয়া এবং পোল্যান্ডে আক্রমণ করেছে। তারা তো ফ্রান্স, গ্রেট বৃটেন বা জার্মানিতে আক্রমণ করেনি।

ভোলোদিমির গ্রোয়িসম্যান মনে করেন এরই মধ্যে তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরু হয়ে গেছে। তিনি বলেন, প্রথমে এবং সর্বাগ্রে গণতান্ত্রিক পশ্চিমা বিশ্বকে হুমকি বন্ধে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে। কারণ, পুতিনের কাছ থেকে সৃষ্ট এই হুমকি ইউক্রেন অতিক্রম করে যাবে। এটা শুধু ইউক্রেনকে কেন্দ্র করে নয়। আমি মনে করি পুতিন তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরু করেছেন। এই যুদ্ধ এরই মধ্যে শুরু হয়েছে ইউক্রেনে। এই যুদ্ধ ইউক্রেনের বিরুদ্ধে নয়। এই যুদ্ধ পশ্চিমী দুনিয়ার বিরুদ্ধে।

Back to top button