আ.লীগ ক্ষমতায় এলেই দেশে দুর্ভিক্ষ দেখা দেয়

আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলেই দেশে দুর্ভিক্ষ দেখা দেয় বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, ১৯৭৪ সালে যখন আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় ছিল তখনও দেশে দুর্ভিক্ষ হয়েছিল। ওই সময় না খেয়ে লাখ লাখ মানুষ মারা গেছে।

এক টুকরো রুটির জন্য মানুষ আর কুকুর টানাটানি করেছে। সেদিন বাসন্তী লজ্জা নিবারণের জন্য একখণ্ড কাপড় পায়নি, মাছ ধরার জাল দিয়ে লজ্জা নিবারণ করেছে। আজ দেশে একই অবস্থা শুরু হয়েছে।  মঙ্গলবার (১৫ মার্চ) দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এক বিক্ষোভ সমাবেশে এসব কথা বলেন তিনি। দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির প্রতিবাদে এ সমাবেশের আয়োজন করে জাতীয়তাবাদী তাঁতীদল।

দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে সাধারণ মানুষের দুঃখ-দুর্দশা দেখার জন্য মন্ত্রী-এমপিদের এসি রুম ছেড়ে রাস্তায় নামার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, হাজার কোটি টাকার মালিকের সঙ্গে শ্রমিকের তুলনা করে জনগণকে বোকা বানাচ্ছে সরকার।

মির্জা ফখরুল বলেন, ক্ষমতাসীনরা বলছে দেশের মানুষের মাথাপিছু আয় বেড়েছে। সাধারণ মানুষের আয় কিন্তু ১৫ হাজার টাকার বেশি নয়। এর চেয়ে ক্ষমতাসীনদের আয় অনেক বেশি। মাসে এক হাজার কোটি টাকা যাদের আয়, তাদের সঙ্গে সাধারণ মানুষের গড় আয় মিলিয়ে জনগণকে ধোঁকা দিচ্ছে সরকার। মাথাপিছু আয়ের মিথ্যা বক্তব্য আর উন্নয়নের বুলি শুভঙ্করের ফাঁকি ছাড়া কিছু নয়।

মির্জা ফখরুল বলেন, সংলাপের নামে নির্বাচন কমিশন নতুন নাটক করেছে। সে নাটক হচ্ছে— তারা বিভিন্ন পেশার, বিভিন্ন স্তরের মানুষের সঙ্গে কথা বলছে। গত পরশু বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের সঙ্গে আলোচনা করছে। ৩০ জনকে আমন্ত্রণ জানিয়েছিল, এসেছেন মাত্র ১৩ জন।

সেখানে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষক বলেছেন, এই তামাশাগুলো কেনো করছেন? নির্বাচনকালীন সময়ে নিরপেক্ষ সরকার যদি না থাকে তাহলে নির্বাচন কখনোই সুষ্ঠু হবে না। এটা আমার কথা নয়, এটা একজন শিক্ষাবিদের কথা।

সমাবেশে সভাপতিত্বে করেন জাতীয়তাবাদী তাঁতীদলের আহ্বায়ক আবুল কালাম আজাদ। এসময় অন্যদের মধ্যে বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা মীর সরাফত আলী সপু, আব্দুস সালাম আজাদ, সাবেক কৃষকদল নেতা সাধন মিয়া সম্রাটসহ সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা অংশ নেন।

Back to top button