ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধে বাড়ছে পটাশিয়াম আয়োডাইড ওষুধের চাহিদা

ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধে পারমাণবিক হামলা বা পারমাণবিক কেন্দ্রে হামলা হলে বায়ুমণ্ডলে তেজস্ক্রিয় বিকিরণের আশঙ্কা রয়েছে। বিকিরণের প্রভাব এড়াতে বিশ্বে, বিশেষ করে আমেরিকা ও ইউরোপে, আয়োডিন সংক্রান্ত ওষুধের বিক্রি বেড়েছে। চাহিদার সঙ্গে বেড়েছে ওষুধের দামও।

দীর্ঘ হচ্ছে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ। এ সংঘাত যত দীর্ঘতর হবে তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধের সম্ভাবনার সঙ্গে সঙ্গে পারমাণবিক হামলার আশঙ্কাও তত বাড়বে। ইউক্রেনের পারমাণবিক কেন্দ্রে হামলা বা সেখানে কোনো দুর্ঘটনা হলে তার তেজস্ক্রিয় বিকিরণের আশঙ্কাও দিন দিন বাড়ছে।

পারমাণবিক হামলা বা নিউক্লিয়ার প্লান্টের ক্ষতি হলে তেজস্ক্রিয় আয়োডিন বাতাসে ছড়িয়ে পড়বে। এই পরিস্থিতিতে আয়োডিন ফুসফুস বা থাইরয়েড গ্রন্থি দ্বারা শোষিত হতে পারে। যা স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকারক হয়ে উঠবে।

পটাসিয়াম আয়োডাইড কী?

পটাশিয়াম আয়োডাইড একটি যৌগ, যা পটাশিয়াম এবং আয়োডিনের উপাদান দ্বারা তৈরি। যা রাসায়নিকভাবে কেএল হিসেবে লেখা হয়। ইউএস সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অনুসারে, পটাশিয়াম আয়োডাইড হলো আয়োডিনের একটি লবণ উপাদান যা থাইরয়েড গ্রন্থিকে তেজস্ক্রিয় আয়োডিন শোষণে বাধা দেয়।

থাইরয়েড গ্রন্থি মানবদেহে এমন অনেক হরমোন তৈরি করে যা শরীরকে নিয়ন্ত্রণ করে। তেজস্ক্রিয় আয়োডিন থাইরয়েড গ্রন্থির ক্ষতি করে এবং তার প্রভাবে ক্যানসার হতে পারে।

ইউরোপের অনেক দেশেই এ ধরনের ওষুধ মজুত করা হচ্ছে। বেলজিয়ামে তিন হাজার নাগরিক এই ওষুধের জন্য ফার্মেসির দোকানে পৌঁছেছেন। যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর থেকে ফিনল্যান্ডেই পটাসিয়াম-আয়োডিন জাতীয় ওষুধের চাহিদা শতগুণ বেড়েছে।

সিএনএনের প্রতিবেদন বলছে, আমেরিকায় এই ওষুধের দাম বেড়েছে। ইউক্রেনে রাশিয়ার হামলার পর থেকে থাইরোসেফ পটাশিয়াম আয়োডাইডের দাম বাড়ানো হয়েছে। চিকিৎসকরা এই ওষুধটি কেবলমাত্র তখনই নেওয়ার পরামর্শ দেন যদি কেউ এই বিকিরণের সংস্পর্শে আসে।

সিডিসির ওয়েবসাইটে বলা হয়েছে, এই ওষুধটি বেশি পরিমাণে গ্রহণ করলে তা আরও সুরক্ষা দেবে, বিষয়টি মোটেও সেরকম নয়, বরং ক্ষতিই হতে পারে। ওষুধটি গুরুতর অসুস্থতা এমনকি মৃত্যুরও কারণ হতে পারে।

Back to top button