সহজ টার্গেট তাড়া করতে নেমে হারলো বাংলাদেশ

এবারের বিশ্বকাপে নিজেদের শেষ ম্যাচে প্রতিপক্ষ ইংল্যান্ডের কাছে হেরেছে বাংলাদেশের মেয়েরা। নিজেদের ইতিহাসে প্রথমবারেরমত বিশ্বকাপ খেলতে এসে বাংলাদেশ একটি মাত্র ম্যাচ জিতেছে। পাকিস্তানের বিপক্ষে। ৯ রানের সেই জয়ই পুরো টুর্নামেন্টে বাংলাদেশের অর্জন। বাকি ম্যাচগুলোর মত আজ শেষ ম্যাচেও ইংল্যান্ডের কাছে বড় পরাজিত বাংলাদেশের নারী ক্রিকেটাররা।

 ওয়েলিংটনের বেসিন রিজার্ভে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে বাংলাদেশের সামনে ২৩৫ রানের বড় লক্ষ্য বেধে দিয়েছে ইংলিশ নারী ব্যাটাররা। জবাব দিতে নেমে একের পর এক উইকেট হারিয়ে বড় পরাজয়ের শঙ্কার মধ্যে পড়েছে নিগার সুলতানারা। টস জিতে ব্যাট করতে নামার পর ৬ উইকেট হারিয়ে ২৩৪ রান সংগ্রহ করেছে ইংল্যান্ড। বাংলাদেশের বোলাররা বলতে গেলে ভালোই বল করেছেন।

ইংলিশ ওপেনার ড্যানি ওয়েটকে মাত্র ৬ রানে ফিরিয়ে দেন জাহানারা আলম। অধিনায়ক হিদার নাইট একজন ভয়ঙ্কর এবং বিধ্বংসী ব্যাটার। কিন্তু তিনিও ভালো কিছু করতে পারলেন না। মাত্র ৬ রান করে সালমা খাতুনের বলে উইকেটের পেছনে নিগার সুলতানার হাতে ক্যাচ দেন তিনি।

তবে আরেক ওপেনার ট্যামি বিউমন্ট এবং চার নম্বরে নামা ন্যাট স্কিভারের ব্যাটে ঘুরে দাঁড়ায় ইংলিশ নারীরা। ট্যামি বিউমন্ট ৬৯ বল খেলেন। তবে রান করেছেন কেবল ৩৩টি। ন্যাট স্কিভার ৫৭ বলে করেন ৪০ রান।

অ্যামি জোন্স ৪৭ বল খেলে আউট হন ৩১ রান করে। সবচেয়ে বেশি ভোগান শোফিয়া ডাঙ্কলি। ৭২ বল খেলে তিনি করেন সর্বোচ্চ ৬৭ রান। ক্যাথেরিন ব্রান্ট ২৪ রানে এবং সোফি একলেস্টোন অপরাজিত থাকেন ১৭ রানে। সালমা খাতুন নেন ২ উইকেট। এছাড়া জাহানারা আলম, রিতু মনি, ফাহিমা খাতুন এবং লতা মন্ডল নেন ১টি করে উইকেট।

জবাব দিতে নেমে শামীমা সুলতানা এবং শারমিন আক্তার ভালোই সূচনা এনে দেন। যদিও তারা খেলেছেন ১৭.৫ ওভার। কিন্তু স্কোরবোর্ডে রান যুক্ত করেছেন কেবল ৪২টি। ৬৪ বলে ২৩ রান করেন শামীমা। ৫০ বলে খেলে শারমিন আক্তারও করেন ২৩ রান।

এরপর ফারজানা হক ১১, নিগার সুলতানা ২২, রুমানা আহমেদ ৬ রান করে আউট হয়ে যান। সালমাও আউট হন ২ রান করে।

রিতু ১১ রানে ফিরে যান। ৩ রানে অপরাজিত থাকেন জাহানারা। শেষ পর্যন্ত ৪৮ ওভারে ১৩৪ রানে গুটিয়ে যায় রুমানারা। এতে ১০০ রানের বড় রানে পরাজিত হয় বাংলাদেশ দল। এতে বিদায় বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নিল টাইগ্রেসরা।

Back to top button